উন্নয়ন কর্মকান্ডে নওজোয়ান

পটভূমি

মানব শিশুর ভূমিষ্ট হওয়ার পূর্বে একটি নিদ্দিষ্ট সময় তাকে মাতৃগর্ভের নিরাপদ আশ্রয়ে অতিবাহিত করতে হয়। এ সময়ের পরিধিতে হাত, পা, চোখ, নাক, কানসহ সকল অঙ্গ প্রত্যঙ্গ বিকশিত হতে হতে এক সময় সে মানুষের প্রতিকৃতি ধারণ করে। অতপর তীব্র চিৎকার ধ্বনির মধ্য দিয়ে পৃথিবীতে তার আগমন বার্তা জানিয়ে দেয়। জন্ম কুষ্ঠিতে ভূমিষ্ট হওয়ার দিনকে শিশুর জন্ম দিন তথা জীবন শুরুর দিন হিসাবে উল্লেখ করা হলেও প্রকৃতপক্ষে  এ আরম্ভেরও একটি প্রারম্ভিক দিক আছে, যা ইহার ভবিষ্যত গতি প্রকৃতিকে নির্ধারণ করে।
আত্মপ্রকাশের ৩৫ বৎসর পেরিয়ে এসে সে দিনের আধোঁ বোল ফোটা কচি শিশু নওজোয়ানের আজকে সুডৌল দেহ সৌঠব নিয়ে গঠিত যৌবনদীপ্ত রূপ দেখে বিস্ময়াভিভুত মন নিয়ে ভাবি আনুষ্ঠানিক জন্মগ্রহণের পূর্বে নিমগ্ন চৌতন্যে সে দিনগুলোর কথা যখন মানব শিশুর ভ্রণকালিন অবস্থার মতো আমরাও অনাগত সুন্দর ভবিষ্যতের স্বপ্নে বিভোর হতাম। শিক্ষা, সংষ্কৃতি, সাহিত্য, ক্রীড়া ইত্যাদিতে পশ্চাদপদ একটি জনপদ পটিয়া উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রাম ডেঙ্গাপাড়ার কিছু সংখ্যক তরুণের মনে জন্মস্থানের এমন দুর্দশাগ্রস্থ চিত্র গভীর রেখাপাত করেছিল সেই ১৯৭৭ সালে। তারুণ্যের উচ্ছাসের সাথে সাথে মানুষের প্রতি দায়িত্ববোধের উপলব্ধি থেকে সে দিন হাতেগোনা কয়েকজন যুবকের চিন্তার স্ফুরণ ঘটে একই বৎসর ১০ জুলাই নওজোয়ানের আত্মপ্রকাশের মাধ্যমে। নওজোয়ান ক্লাব নামে প্রতিষ্ঠিত সংগঠন প্রাথমিক পর্যায়ে সাহিত্য ও ক্রীড়া কর্মসূচীর মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলেও সংগঠকরা অচিরে বুঝতে পারলো যে গ্রামের সুবিধা বঞ্চিত হতদরিদ্র মানুষের অর্থনৈতিক অবস্থার পরিবর্তনশীল কর্মসূচী ব্যতিরেকে সমাজের অন্যান্য ক্ষেত্রে উন্নয়ন সম্ভব নয়। এ উপলব্ধি থেকে ১৯৯২ সালে  সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত অনুসারে সাহিত্য, ক্রীড়া কর্ম তৎপরতার সাথে অর্থনৈতিক ও সমাজ উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডকে ক্লাবের উদ্দেশ্য ও লক্ষ্যের সাথে সংযুক্ত করা হয় এবং গ্রামের গন্ডি পেরিয়ে যা পরবর্তীতে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবন জেলায় সংগঠনের কার্যক্রম বিস্তৃত করা হয়। সামাজিক উন্নয়ন সংগঠন হিসাবে যার প্রথম যাত্রা শুরু সেই নওজোয়ান ক্লাব আজ দেশের অগ্রগণ্য কয়েকটি এনজিওর একটি। এটি আমি কিংবা নওজোয়ানের কর্মকর্তাবৃন্দের একক কোন কৃতিত্ব নয়। বরং আমাদের সকল দাতা, কর্মী, সদস্য, শুভানুধ্যায়ী, পরামর্শক, সর্বোপরি আমাদের প্রতি সহানুভুতিশীল সকল মানুষ নওজোয়ানের এ সম্মান, গৌরব ও সমৃদ্ধির অংশীদার।
নদীর যেমন ভাঙ্গা গড়া আছে, জীবনের যেমন উত্থান পতন আছে তেমনি সাংগঠনিক কার্যকলাপেও কখনও গতিময়তা, কখনও স্থিতিবস্থা বিরাজ করতে দেখা যায়। নওজোয়ানও প্রকৃতির এই চির সত্যকথন থেকে ব্যতিক্রম নয়। ১৯৭৭ সালে যে প্রাণ প্রাচুর্য্য নিয়ে এর জন্ম হয়েছিল, ১০ বৎসরের ব্যবধানে, ১৯৮৮ সালে এসে তাতে যথেষ্ট ভাটা পড়ে। সংগঠনের তরী যখন ভাটার টানে বালুচরে আটকে থাকার অবস্থা তখন ঝঞ্ঝা বিধ্বংস তরীর কান্ডারী হিসাবে আবির্ভূত হন আত্মপ্রত্যয়ী, অকুতোভয় একদল তরুণ। দেশ, সমাজ ও মানুষের কল্যাণে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ, বুদ্ধিদীপ্ত, শিক্ষিত, সজ্জ¦ন ইমাম হোসেন চৌধুরীর নেতৃত্বে নওজোয়ান ইহার শাব্দিক অর্খের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ নব যৌবন নিয়ে নতুন রূপে আবির্ভূত হয়।
১৯৯০ সালে যে তরুন সমাজের প্রবল আগ্রহে সংগঠনের রথচক্র শক্তিসঞ্চয় করে তাদের অনেকে কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের লেখা পড়ায় সময় দিতে গেলে ইহার কাজ কিছুটা শ্লথগতি হয়ে পড়ে, কিন্তু তা একেবারেই সাময়িক। ১৯৯২ সালে ঐ তরুনরাই আবার সমাজ ও মানব সেবার অসমাপ্ত দায়িত্ব সম্পাদনে নতুনভাবে ঝাঁপিয়ে পড়েন। শিক্ষিত, স্বল্পশিক্ষিত তরুনদের পাশাপাশি অশিক্ষিত, অর্ধশিক্ষিত তরুন, তরুনীসহ সমাজের সকল স্তরের মানুষের অংশগ্রহন আন্দোলনে নতুন মাত্রা যোগ করে এবং অতি অল্পসময়ের মধ্যে তৃণমূল পর্যায়ের কৃষক, মজুরসহ অন্যান্য প্রান্তিক আয়ের মানুষ ইহার সাথে সম্পৃক্ত হয়। মূলত এখান থেকে নওজোয়ানের নব যাত্রা।
ভূল, শুদ্ধ, পরিবর্তন, পরিমার্জন, পরিবর্ধনের অভিজ্ঞতার সার সঞ্চয় করতে করতে ১৯৯৬ সালে নওজোয়ান বিশ্ব ব্যাপী এনজিও কর্মসূচি; দারিদ্র্যমুক্তি, গনতন্ত্রায়ন, জলবায়ু পরিবর্তন, পরিবেশ, নদী, সমুদ্র, পাহাড়, বন, স্বাস্থ্য সুরক্ষা, বায়ূ, জলের দূষণমুক্তি, নারীর ক্ষমতায়ন, সকলের জন্য শিক্ষা ইত্যাদি উন্নয়ন কর্মকান্ড ও আন্দোলনের সাথে সম্পৃক্ত হয়। কাজের পরিধি বিস্তৃতিলাভ করার সাথে বৃহত্তর অন্যান্য মাতৃ সংগঠনের সাথে সম্পর্ক গড়ে তোলে। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৭৭ সালে আন্তর্জাতিক স্বেচ্ছাসেবী মিস লিনটে (ইপসা ও বি ডাব্লিউ সি এ)’র সৌজন্যে নওজোয়ানকে আর্থিক সহযোগিতা প্রদান করেন। মিসেস লিনটের সেদিনের সে অবদান আমাদের কর্মী ও শুভাকাঙ্খীদের মধ্যে যে উৎসাহ ও প্রেরণা যুগিয়েছিল তাই আমাদের আজকের উন্নতির প্রথম সোপান। নওজোয়ানের দুর্দিনে যে সকল সংগঠন ও ব্যক্তিবর্গ সাহায্য, সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছিলেন আমরা কৃতজ্ঞ চিত্তে তাদের কথা স্মরণ করি।
পরিশেষে যার নিঃস্বার্থ সহযোগিতার কথা না বললে বিবেকের কাছে আমরা দায়ী থাকবো তিনি হলেন পটিয়া নির্বাচন এলাকা থেকে নির্বাচিত স্বনামধন্য সাবেক এমপি, নওজোয়ানের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য জনাব সিরাজুল ইসলাম চেীধুরী। সত্যিকারভাবে তাঁর নিরলস চেষ্টা ও উদ্যেগের ফলে এই সংগঠন ১৯৮০ সালে সরকারি অনুমোদিত লাভ করে। নওজোয়ানের সকল কর্মকর্তা, কর্মচারি, সদস্য ও শুভাকাঙ্খীর পক্ষ থেকে তাঁর প্রতি আমরা সম্মান, শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা জানাই।
সংস্থার নামঃ
নওজোয়ান সমাজ ঊন্নয়ন সংগঠন ।
নওজোয়ানের নামের বাংলা অর্থঃ
নওজোয়ান এর বাংলা অর্থ সাহসী/বীর এবং এ শব্দ দ্বারা ন্যায় ও মহৎ কর্মের মাধ্যমে অবস্থার প্রয়োজনীয় প্রতিকারের সংগ্রাম প্রচন্ড শক্তিমান যুবকদের বুঝায়। নওজোয়ান একটি স্থানীয় অরাজনৈতিক, অলাভজনক বেসরকারী সংগঠন।
প্রতীক এর অর্থঃ 
বাংলাদেশের জাতীয় ফুল শাপলা দিয়ে এখানে প্রস্ফুটমান যৌবনকে বুঝানো হয়েছে। পাপড়িগুলো বিকাশমান তারুণ্যের অন্তর্নিহিত সম্ভাবনার দ্যোতক। দীঘির স্বচ্ছ কালো জলে শাপলা যেমন করে উজ্জ্বল হাসির দীপ্তি ছড়িয়ে স্তব্ধ বিষন্নতাকে আনন্দের উচ্ছল বন্যায় ভাসিয়ে দেয়, নওজোয়ানও তেমনি তমসাবৃত বন্ধ্যা সমাজকে যৌবনের অপ্রতিরোধ্য প্রাণের শক্তিতে মুখরিত করে তুলবে। অসীম আকাশের মুক্ত আঙ্গিনায় স্বচ্ছন্দ, স্বাধীন জীবনের প্রতীক উড়ন্ত পায়রা প্রকৃতপক্ষে নওজোয়ানের লক্ষ্য, উদ্দেশ্য ও চিন্তার স্বাধীনতা ও কল্পনার সীমাহীন দিগন্তকে ব্যক্ত করছে। উড়ার আনন্দে বিভোর পাখি যেমন অচেনাকে চেনার, অজানাকে জানার আকাক্সক্ষা নিয়ে আকাশ পাড়ি দেয়, নওজোয়ানও তেমনি বৃহৎ থেকে বৃহত্তর জনগোষ্ঠীর মহামিলনের অপার তীরে ধাবমান হবে। কে বাধিবে তার এই অগ্রযাত্রা। 
প্রতিষ্ঠানের ধরনঃ
নওজোয়ান একটি স্থানীয়, অরাজনৌতিক, অলাভজনক, বেসরকারী স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন।
স্বপ্নঃ
এমন এক ন্যায় ভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠা যেখানে সবার জন্য সুযোগ থাকবে।
অঙ্গীকারঃ
নওজোয়ান হতদরিদ্র, দুঃস্থ, অসহায় মানুষের বিশেষতঃ নারী ও শিশুর দক্ষতা ব্যবহার করে প্রাতিষ্ঠানিক উন্নয়ন, ক্ষমতায়ন, সচেতনতা বৃদ্ধির মাধ্যমে আর্থ -সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন ।
লক্ষ্যঃ
জনগনের অধিকার বাস্তবায়ন এবং ইতিবাচক পরিবর্তন।
মূল্যবোধ সমূহঃ
আন্তরিকতা, পারস্পরিক শ্রদ্ধা ও অঙ্গীকার, দলীয় গতিশীলতা, মানব উন্নয়ন ও অধিকার এবং সুশাসন।
উদ্দেশ্যঃ             
১) এই সংগঠন অরাজনৈতিক, স্বেচ্ছাসেবী, সমাজকল্যাণমূলক সংস্থা।
২) এলাকায় চিহ্নিত স্থানীয় সম্পদ যথাযথ ব্যবহার করার মাধ্যমে মানব সম্পদ উন্নয়ন ও মানব কল্যাণ গঠন।
৩) অবহেলিত মানব সম্পদকে দলীয় অংশগ্রহণের  মাধ্যমে নেতৃত্ব বিকাশ ও বিকাশের সহায়তা এবং পরিকল্পনা গ্রহণ।
৪) জনগোষ্ঠিকে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র দলে সংগঠিত করে আয় বৃদ্ধিমূলক প্রকল্পের মাধ্যমে তাদের জীবন যাত্রান মান উন্নয়ন ও আত্মনির্ভরশীল  হিসাবে গড়ে তুলতে সহায়তা।
৫) মানব সম্পদ উন্নয়নের লক্ষ্যে সরকারী ও বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থার সাথে যোগাযোগ রক্ষা ও সমন্বয় সাধন।
৬) পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষার্থে উপযোগী কর্মসূচী গ্রহণ।
৭) মানব জাতির মৌলিক অধিকার অর্থাৎ অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান চিকিৎসা ও শিক্ষা ইত্যাদির ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় কর্মসূচী গ্রহণ।
৮) সংগঠিত জনগোষ্ঠির নিজস্ব তহবিল গঠন এবং সংস্থার মাধ্যমে দারিদ্র বিমোচনের বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা।
৯) জেন্ডার ও প্রতিব›দ্ধী উন্নয়নে উপযোগী কর্মসূচী গ্রহণ।
১০) দেশীয় সাহিত্য, সংস্কৃতি ও ক্রীড়ার মান উন্নয়নের লক্ষ্যে বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ।
১১) এই সংস্থার সদস্য ও কর্মকর্তাদের পেশাগত জ্ঞান ও দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ।
১২) জাতীয় ও আন্তজাতিক পরিসরে উন্নয়ন ও মানবাধিকারের মহান নীতিসমূহের প্রতি একাত্ততা প্রকাশ।
প্রতিষ্ঠা ও নিবন্ধন তথ্যঃ
নওজোয়ান ১০ জুন ১৯৭৭ ইং সালে প্রতিষ্ঠিত হয় এবং গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন বিভাগ কর্তৃক নিবন্ধীকৃত স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন।
সমাজকল্যাণ বিভাগ    চট্ট – ৮১৮/৮০ ১৯-০৬-১৯৮০ ইং,
যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর   চট্ট -৮১  ২৯-০১-১৯৯৭ ইং,
এনজিও বিষয়ক ব্যুরো  রেজিষ্ট্রেশন নং- ১৭৪২   ০৩-১০-২০০২ ইং, নবায়ন- ১২.১০.২০১২
পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তর রেজিষ্ট্রেশনঃনং-২০১/০৬ ৩০.০৩.২০০৬ ইং,
মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর  রেজিষ্ট্রেশন নং:- উঘঈ – ০০৪৬  ১৬.০৫.২০০৫
মাইক্রো ক্রেডিট রেগুলেটরি অথরিটি রেজি নং- ০১০২২-০০৬২৯-০০১৬৮  ১৬.০৩.২০০৮
পেডর (পিডিওআর)   ইউরোপিয়ান এইড বিডি নং- ২০০৯- জিইউকিউ- ১৩০৮৬৮৯২১৬
এডিবি (অউই)   সিএমএস সদস্য নং- ০১০৮২০ (২০ অক্টোবর, ২০১১)
পরিচালনা পরিষদঃ
বর্তমানে নওজোয়ান এ ৩৪ জন সাধারণ সদস্য, ১১ জন আজীবন সদস্যসহ বিভিন্ন পেশাজীবির ০৭ সদস্য বিশিষ্ট একটি শক্তিশালী কার্যকরী পরিষদ ও ২৫ সদস্য বিশিষ্ট উপদেষ্টা পরিষদ রয়েছে।    
বর্তমান কার্যকরী পরিষদ   (জুলাই ২০১১ ইং – জুন ২০১৩ ইং পর্যন্ত)
      ০১  অধ্যাপকফরিদাইয়াসমিন(সভাপতি)
     ০২ মোহাম্মদইমামহোসেনচৌধুরী(সাধারণসম্পাদক
     ০৩ রুম্পীচৗধুরী(অর্থসম্পাদক
     ০৪ সাবরিনাআরজুমান্দ(মুন্নি) (কার্যকরীসদস্য)  
     ০৫ মোঃমাহবুবুলইসলামচৌধুরী  (কার্যকরীসদস্য
     ০৬ মোঃসামসুদ্দীনভূঁঞা(তুতুল) (কার্যকরীসদস্য)
     ০৭ লায়নএমএসসাত্তার(কার্যকরীসদস্য)  
কর্মী তথ্যঃ
৩৯ জন মহিলা ও ৫২ জন পুরুষ সহ মোট ৯১ জন অফিস ও প্রকল্পভিত্তিক (ফুল টাইম, পার্ট-টাইম, স্বেচ্ছাসেবক) কাজ করে। এছাড়াও জাপান, আমেরিকা, ফ্রান্স, জার্মান, হল্যান্ড, কোরিয়া, অষ্ট্রেলিয়াসহ বিভিন্ন, দেশের প্রতিনিধিগন বিভিন্ন সময়ে স্বেচ্ছাসেবক হিসাবে কাজ করছে।
কর্ম এলাকাঃ
চট্টগ্রাম জেলা, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন, কক্সবাজার,ফেনী এবং পার্বত্য জেলা বান্দরবান, রাংগামাটি ও খাগরাছড়িতে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কার্যক্রম বাস্তবায়ন করেছে।
লক্ষিত জনগোষ্ঠিঃ
দরিদ্র, হতদরিদ্র, অবহেলিত এবং ভূমিহীন জনগোষ্ঠি (বিশেষতঃনারী ও শিশু), কিশোর-কিশোরী, প্রতিবন্ধী, সংখ্যালঘু, ট্রাক/বাস/রিক্সা চালক, ঘাট/গুদাম/কারখানা শ্রমিক এবং যৌন কর্মী, বিভিন্ন পেশাজীবি ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তি, সরকারী ও বেসরকারী সংস্থা এবং নীতি নির্ধারক সমূহ।
উপকারভোগীর সংখ্যাঃ
নারী ৩৩০০০ জন, পুরষ ৬০০০ জন, শিশু ১৫০০ জন, কিশোর-কিশোরী ৩২০০ জন এবং পরিবার ১২৩০০ টি ।
বাৎসরিক বাজেটঃ
১৫, ১০, ১০,৩২৫ (পনের কোটি দশ লক্ষ দশ হাজার তিনশত পচিশ টাকা) জুলাই ২০১১ জুন হতে ২০১২ ইং অর্থ বৎসর।
ব্যাংক হিসাবঃ প্রধান হিসাব নং:
এবি ব্যাংক লিমিটেড-১১৪৬১৯-০০০ আরব বাংলাদেশ ব্যাংক, বহদ্দারহাট ব্রাঞ্চ, বহদ্দারহাট, চট্টগ্রাম।
চলমান কর্মসূচী
স্বাস্থ্য   
    ১.প্রতিবন্ধী উন্নয়ন কর্মসূচি
    ২.খাদ্য নিরাপত্তা ও ভোক্তা অধিকার
    ৩.ওয়াটার অ্যান্ড স্যানিটেশন
    ৪.তামাক ও মাদক নিরোধ
    ৫.পরিবার পরিকল্পনা ও প্রজনন স্বাস্থ্য সেবা 
পরিবেশ
    ১.সামাজিক বনায়ন (বৃক্ষ রোপন)
    ২.নদী সংরক্ষন (হালদা ও কর্ণফুলি বাঁচাও)
    ৩.জলবায়ু পরিবর্তন
    ৪.দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা
    ৫.আবর্জনা ব্যবস্থাপনা ও জৈব সার তৈরী
শিক্ষা ও সামাজিক ন্যায় বিচার
    ১.উপানুষ্ঠানিক প্রাথমিক শিক্ষা 
    ২.শিশু উন্নয়ন
    ৩.মানবাধিকার ও সু-সাশন
যুব উন্নয়ন ও স্বেচ্ছাসেবক
    ১.আন্তর্জাতিক স্বেচ্ছাসেবক বিনিময় কর্মসূচি
    ২.লোকাল নলেজ লাইব্রেরী 
আয়বর্ধন মূলক /এন্টারপ্রাইজ
   ১.ক্ষুদ্র্রঋন
   ২.রূটস
  ৩.মোবাইল ব্যাংকিং
   ৪.সোলার এর্নাজি
  ৫.শস্য গুদামজাত করণ
উল্লেখযোগ্য বাস্তবায়ন
শিক্ষা এবং সাংস্কৃতিক কার্যক্রম (সহযোগীতায় এন এ সি/ প্রশিকা)
রুরাল লাইভলিহুড প্রোগ্রাম (আর এল পি)/সব্জি-ডি এফ আাই ডি (সহযোগীতায় : কেয়ার বাংলাদেশ)
মাইক্রোফাইন্যান্স কেয়ার ইনকাম  প্রজেক্ট (সহযোগীতায় : কেয়ার বাংলাদেশ)
প্রতিবন্ধী উন্নয়ন (সহযোগীতায় : কেনেডিয়ান সিডা)
উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রম (সহযোগিতায়:উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা অধিদপ্তর)
একক উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রম (সহযোগিতায়:প্রশিকা ও কোডেক)
আবর্জনা ব্যবস্থাপনা ও জৈব সার তৈরী (সহযোগীতায়:পরিবেশ অধিদপ্তর/ বি ই এম পি)
স্থানীয় সরকার শক্তিশালীকরন প্রকল্প (সহযোগীতায়:বিটা/এ আর ডি)
উদ্যোগতা (ইনট্রিপ্রিনিরাস) উন্নয়ন (সহযোগীতায়:ই ডি এফ সি এবং ইউ এস্ এইড )
বৃক্ষ রোপন কর্মসূচি (সহযোগীতায় :উপকূলীয় সবুজ বেষ্টনী ও ফরেষ্ট্রী সেক্টর প্রকল্প)।
কিশোরী প্রজনন স্বাস্থ্য কর্মসূচি(সহযোগীতায়:যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর/ইউ এন এফ পি এ)
সুশীল সমাজ ও ভোটার কর্মসূচি কার্যক্রম (সহযোগিতায়: বিসিডিজেসি, এশিয়ান ফাউন্ডেশন ও সমতট এবং ব্রতী)
জাটকা নিধন নিষিদ্ধকরণ কর্মসূচি(সহযোগীতায় :সি ও এফ সি ও এন/একশন এইড)
স্বাস্থ্য, পুস্টি এবং পরিবার পরিকল্পনা বিষয়ক সচেতনতা (সহযোগীতায়:হাসাব)
দ্যা গ্লোবাল এক্সচেঞ্জ কর্মসূচির আওতায় আন্তর্জাতিক স্বেচ্ছাসেবক বিনিময় কার্যক্রম(সহযোগীতায়:ব্রিটিশ কাউন্সিল, ভিএসও এবং ইপসা)
জাতীয় নির্বাচন পর্যবেক্ষক-০৮(সহযোগীতায়:ওয়েভ ফাউন্ডেশন/এশিয়া ফাউন্ডেশন/ সমতট/ব্রতী)
এভিয়ান ইনফ্লুয়েঞ্জা সংক্রামক বিষয়ক সুশীল সমাজ কর্তৃক নেটওয়ার্ক কার্যক্রম (সহযোগিতায় : কেয়ার বাংলাদেশ)
পদক্ষেপ কনসোর্টিয়াম/সেভ দা চিল্ড্রেন (সহযোগিতায়:ইউ এস এ/জি এফ এ টি এম)
চট্টগ্রাম হালদা নদীর বিকল্প কর্মসংস্থান তৈরীর সেবা কার্যক্রম (সহযোগিতায় :অস এইড)
পটিয়া পৌরসভা স্বাস্থ্যগত উন্নয়ন বিষয়ক প্রাক প্রকল্প কার্যক্রম (সহযোগিতায়:হু বাংলাদেশ)
কিশোরী প্রজনন স্বাস্থ্য এবং উন্নয়ন বিষয়ক কার্যক্রম (সহযোগিতায় : এডিএ ফোরাম এবং এ্যাকশন এইড)
নওজোয়ান প্রতিবন্ধী রিসোর্স সেন্টারের তৈরী বিষয়ক কার্যক্রম (সহযোগিতায় : জাপান এ্যামবেসী)
পটিয়ায় স্কুল পর্যায়ে স্বাস্থ্যগত উন্নয়ন বিষয়ক কর্মসূচি (সহযোগিতায় : হু বাংলাদেশ)
প্রতিবন্ধী শিশুদের বিনোদন কেন্দ্র উন্নয়ন বিষয়ক কার্যক্রম (সহযোগিতায় : সাউথ হল ট্রাস্ট)
কর্মক্ষেএে এইচ আই ভির প্রাথমিক পর্যায়ে ঝুকি হ্রাস প্রতিরোধ প্রকল্প কর্মসূচি (সহযোগিতায়- ইপসা কন্সোটিয়াম এবং সেই্ভ দা চিলড্রেন-ইউ,এস,এ-জি, এফ,এম,টি,এম-৯১২)
রেডি প্রকল্প কাযত্রুম (সহযোগিতায়-এ্যাকসন এইড ) ।
উপ-আনুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যত্রুম (সহযোগিতায়-ব্র্যাক ইউ এস পি)
আর্থিক ও কারিগরী সহায়তা দানকারী দাতা সংস্থাসমূহ
আর্থিক সহায়তা
০১) পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) ০২) লিলিয়ান ফন্ডস-নেদারলেন্ডস ০৩) ডেনমার্ক দূতাবাস ০৪) বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু) ০৫) সি এস ডি এফ/স্টেপস টুর্য়াডস ডেভেলপমেন্ট ০৬)এন জি ও ফোরাম ফর ড্রিংকিং ওয়াটার সাপ্লাই এন্ড স্যানিটেশন ০৭) ডাব্লিউ বি বি ট্রাস্ট ০৮)  বাংলাদেশ ওয়াটার পার্টনারশীপ ০৯) মৎস্য দপ্তর/মৎস্য ও পশু সম্পদ মন্ত্রনালয় ১০) পরিবেশ অধিদপ্তর ১১) যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর ১২) পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তর ১৩)পরিবেশ অধিদপ্তর ১৪) সমাজ সেবা দপ্তর ১৫) বেসিক ব্যাংক লিমিটেড ১৬) সাউথইস্ট ব্যাংক লিমিটেড ১৭) পূবালী ব্যাংক লিমিটেড ১৮) মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিমিটেড ১৯) ওয়ান ব্যাংক লিমিটেড  ২০) ইউনাইটেড কর্মাশিয়াল ব্যাংক লিমিঢেড ২১) সিটি ব্যাংক লিমিটেড ২২) রূপালী ব্যাংক লিমিটেড ২৩) সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড ২৪) নিজস্ব ও স্থানিয় তহবিল
কারিগরী সহায়তা
০১) বাটা ০২) সিডিডি ০৩) এন এফ ও ডাব্লিউ ডি ০৪) বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দেলন (বাপা) ০৫) জাতীয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশন ০৬) বেলা   ০৭) এসআরপিভি ০৮) ইউনাইটেড ন্যাশান ইন্ডাসট্রিয়াল ডেভেলপমেন্ট অরগানাইজেশন (ইউ নি ডো) ০৯) ইন্টারনশান্যাল এসোসিয়েশান ফর স্পেশাল এডুকেশন- আই এ এস ই ১০) মাদক নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর ১১) স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ১২) এ ওয়াই এ ডি ১৩) বি ডাব্লিউ এ।

সমমনা জাতীয় ও আর্ন্তজাতিক সংস্থা/ফোরাম/নেটওয়ার্ক/এলায়েন্স/ফেডারেশন এর সাথে নেটওয়ার্ক সমুহ

এডাব, সি সি এইচ আর বি, সি ডি এফ, সি এস ডি এফ, সি আর এস ডি এন, জি ডি এফ, এন এফ ওয়াই ও বি, সি ডি ডি, এন এ সি, এ এল আর ডি, বি এফ আর জি, বি এস এ এফ, বি ডাব্লিউ সি এ, ফেমা, কয়ননিয়া, ই ডি এফ সি, সুপরা, অন্তর, এন এফ ও ডাব্লিউ ডি, বাটা, এ্যাটসেক, এন ওয়াই সি বি, সিএসডি, সি এ এইচ ডি, কেম্প, পি এইচ এম, কেব, সিইডিএ, পি এস ইউ এস এস পি, এ ডি এফ – বাংলাদেশ, বাপা, এস ভি এ ডাব্লিউ, গারনেট-এস এ, বাফ, ভি এইচ এস এস, সি ডি পি, কফকন, ব্লাস্ট, এন সি বি পি, বিশ্ব সমাজ ফোরাম (ডাব্লিউ এস এফ), চট্টগ্রাম বিভাগিয় সমাজ সেবা ফেডারেশন, এফ এইচ আই, সমটত/ব্রতি, বি এস ডাব্লিউ এম, র্বান, ডন, বি টি এন, এন সি সি বি, এফ ওয়াই ও সি, বি ই আই, বি ডাব্লিউ পি, ভি এস ও, বেলা, এইচ সি বি, আই এ ভি ই, মাইক্রোক্রেডিট সুমিট কেম্পেইন, প্রয়উথ নেটওয়ার্ক, ক্রিন, এ সি ডাব্লিউ, এ ওয়াই এ ডি,  আই এ এস ই, এস এ এম এন, ইউ এ আই সি ডি, খান ফাউন্ডেশন, রাইট্স টু ফুড মুভমেন্ট, এস টি আই/এইডস নেটওয়ার্ক অফ বাংলাদেশ, ব্রিটিশ কাউন্সিল ,চট্টগ্রাম, ওয়েস্ট নেট বাংলাদেশ, ফরেষ্ট পলিচি এ্যাডভোকেচি ফোরাম, জেলা, উপজেলা, সিটি কর্পোরেশন, পৌরসভা, পুলিশ প্রশাসন।
পদক/ সন্মাননা প্রাপ্তি
যুব উন্নয়নে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ ২০০১ সালে নওজোয়ান প্রধান নির্বাহী মোঃ ইমাম হোসেন চৌধুরীকে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রনালয়ের যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের অধিনে উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ট সফল যুবক হিসাবে মনোনীত হন । তারিখ: ২২/০৫/২০০১ ইং।
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক বৃক্ষরোপণে বিশেষ  অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ, নওজোয়ান ২০০৮ সালে, প্রধান উপদেষ্টার জাতীয় পুরস্কার ২০০৭ লাভ  করেন। তারিখ: ২৪/০৫/২০০৮ ইং।
প্রত্নতও্ব আলোকচিত্র মিউজিয়াম চট্টগ্রাম কর্তৃক সমাজ সেবার ক্ষেত্রে গৈরবময়  অবদান ও কীর্তির স্বীকৃতিস্বরূপ ২০০৮ সালে  নওজোয়ান প্রধান নির্বাহী জনাব মোঃ ইমাম হোসেন চৌধুরী বিশেষ সম্মাননা পদকে ভূষিত হন। তারিখ: ১৭/০৬/২০০৮ ইং।
নিখিল বঙ্গ প্রাথমিক শিক্ষা আন্দোলনের পথিকৃত, মৌলভী ছৈয়দ ছোলতান স্মৃতি ট্রাষ্ট কর্তৃক সেবা ও উন্নয়ন সংগঠক হিসাবে নওজোয়ান প্রধান নির্বাহী মৌলভী ছৈয়দ ছোলতান স্মৃতি স্বর্ণ পদক ২০০৭-২০০৮ লাভ করেন। তারিখ: ২৪/১১/২০০৮ ইং।
ভাষা সৈনিক প্রিন্সিপাল আবুল কাসেম সাহিত্য একাডেমী কর্তৃক মাতৃভাষা প্রচলন, সংরক্ষণ ও গবেষণার লক্ষ্যে ‘চাটগাঁ ভাষা পরিষদ’ প্রতিষ্ঠায় মূখ্য ভূমিকা পালনের জন্য নওজোয়ান একুশে মাতৃভাষা পুরস্কার ২০০৯ অর্জন করেন। তারিখ: ১১/০৩/২০০৯ ইং।
বৃক্ষ প্রেমী পরিবেশ ও প্রাণী সংরক্ষণ সমিতি বাংলাদেশ কর্তৃক বিশ্ব পরিবেশ দিবস- ০৯’ উপলক্ষ্যে বৃক্ষ রোপণ পরিচর্যা, পরিবেশ সংরক্ষণ, উন্নয়ন ও বন সচেতনতা সৃষ্টির ক্ষেত্রে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ উন্নয়ন কর্মী হিসাবে নওজোয়ান প্রধান নির্বাহী জনাব মোঃ ইমাম হোসেন চৌধুরী পরিবেশ পদক লাভ করেন। তারিখ: ০৫/০৬/২০০৯ ইং।
গ্রামীণ কমিউনিকেশন লিমিটেড এবং কিউশো বিশ্ববিদ্যালয় জাপান এর যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত (৩য় বার) অনলাইন ভিত্তিক “আমাদের গ্রাম ও আমাদের গর্ব ” প্রতিযোগিতায় নওজোয়ান বিশেষ পুরস্কার লাভ। তারিখ : ০৪/০২/২০১১ ইং।

তত্তাবধায়ন, পর্যবেক্ষন ও প্রতিবেদন

সংস্থার প্রকল্পভিত্তিক দক্ষ কর্মী নিবিরভাবে সুপারভিশন ও নিয়মিত মনিটরিং করে প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য অর্জন করার মাধ্যমে যথাযথ প্রতিবেদন করা হয়। প্রকল্পভিত্তিক সকল কর্মীদের সমন্বয়ে মাসিক কর্মী সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয় যার মাধ্যমে প্রকল্পের অগ্রগতি নিরুপন করে কর্ম পরিকল্পনা প্রনয়ন করা হয় যা সংস্থার প্রথান নির্বাহীর নিকট প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাপনা ও নির্দেশনার জন্য উপস্থাপিত হয়। প্রকল্প প্রধানগন যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে দাতা সংস্থা ও অন্যান্যদের নিকট প্রতিবেদন প্রেরন করেন।
বিশেষ কমিটি ও উপকমিটির সদস্যপদ প্রাপ্তি 
১) এডাব চট্টগ্রাম চ্যাপটারের কোষাধক্ষ্য।
২) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মৎস্যও পশু সম্পদ মন্ত্রনালয়ের অধিনে হালদা নদীর প্রাকৃতিক মাছ ও পোনা প্রজনন ব্যবস্থাপনা সমন্বয় কমিটির সদস্য।
৩) চট্টগ্রাম জেলা পরিবেশ ও বনায়ন উন্নয়ন কমিটির সদস্য।
৪) বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) এর সদস্য।
৫) জাতীয় নদী রক্ষা আন্দোলন (জে এন আর এ) এর সদস্য।
৬) জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে তামাক নিয়ন্ত্রন টাস্কফোর্স কমিটির সদস্য।
৭) জেলা পাহাড় ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য।
৮) বর্ষা মৌসুমে বন্যার কবল থেকে জানমাল রক্ষা, নদী ভাঙ্গন, পানি উন্নয়ন বোর্ডের বাঁধ সহ অন্যান্য অবকাঠামো ভাঙ্গন রোধ কল্পে সতর্কী করন সংক্রান্ত জেলা কমিটির সদস্য।
৯) জেলা এনকাউনটারিং নেচারেল ডিজাস্টার ভিজিলেন্স কমিটির সদস্য।
১০) হালদা নদীর প্রকৃতিক মৎস্য প্রজনন ক্ষেত্র পুনরুদ্ধার স্টেয়ারিং কমিটির সদস্য।
১১) ওয়ান হেল্থ বাংলাদেশ এর সদস্য।
১২) কারাগারে থাকা শিশু/ কিশোরদের অবস্থা উন্নয়নের লক্ষে জেলা টাস্কফোর্স কমিটির সদস্য।
সচিবালয় সহায়তা ও পরিচালনা
চাটগাঁ ভাষা পরিষদ (সি এল সি)
চট্টগ্রামের ভাষা, সংস্কৃতি, অভ্যাস, ঐতিহ্য চর্চা, পরিচর্যা ও চাটগাঁ ভাষাকে সাহিত্য গুন সম্পন্ন লেখ্য ভাষায় উন্নীতকরনের লক্ষ্যে নওজোয়ানের প্রধান নির্বহী মোঃ ইমাম হোসেন চৌধুরী উদ্দোগ গ্রহন করেন। নওজোয়ান ও সিল বাংলাদেশ এর যৌথ কারিগরী ও আর্থিক সহযোগীতায় পরিচালিত হচ্ছে।
লোকাল নলেজ লাইব্রেরী (এল কে এল)
নওজোয়ানের প্রধান নির্বাহীর প্রচেষ্টা ও স্বীয় উদ্যোগের সমন্বয়ে লোকাল নলেজ লাইব্রেরীর কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়। এই কার্যক্রম শুরুর মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হল স্থানীয় পর্যায়ের তরুন সমাজের মধ্যে থেকে ভবিষৎ এর নেতৃত্বে তৈরী করা যার মাধ্যমে তরুন সমাজের মেধা ও মননে লালিত প্রতিভাকে বিকাশের মাধ্যমে একবিংশ শতাব্দীর বাধাসমূহে জয় করা। এরই আলোকে নওেজায়ান তার দূরদৃষ্টিসম্পন্ন চিন্তার আলোকে ভবিষৎ এ সুশাসন প্রতিষ্ঠা করা, দক্ষ মানব সম্পদ তৈরী প্রযুক্তিগত জ্ঞান ও তার ব্যবহারিক দক্ষতা বৃদ্ধিকরণ, স্থানীয় পর্যায় হতে দক্ষ নেতৃত্ব তৈরী এবং আত্মনির্ভরশীল তরুন প্রজন্ম গড়ে তোলা।
হালদা রিভার এরিয়া ওয়াটার পার্টনারশীপ
ঘালদা রিভার এরিয়া ওয়াটার পার্টনারশীপ বাংলাদেশ ওয়াটার পার্টনারশীপের একটি নেটওয়ার্ক। হালদা নদী হলো বাংলাদেশ তথা দক্ষিণ এশিয়ার একমাত্র প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন ক্ষেত্র এবং বাংলাদেশের জাতীয় ঐতিহ্যর অংশ। নওজোয়ান সমাজ উন্নয়ন সংগঠন এই নেটওয়ার্কের স্থানীয় হালদা রিভার এরিয়া ওয়াটার পার্টনারশীপ উদ্যোগী সংস্থা এবং যার সচিবালয় নওজোয়ানের প্রধান কার্যালয়ে অবস্থিত। এর প্রধান উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য হল মানুষ্য ও প্রকৃতিকগত দৃষ্টি পরিবেশগত সমস্যা হতে একে রক্ষার মাধ্যমে স্থানীয় পর্যায়ে সচেতনতা তৈরী করা।
সংস্থার প্রধান কার্যালয়, প্রকল্প ও কর্মসূচীর অফিসের ঠিকানা
প্রধান কার্যালয়-(চট্টগ্রাম)   বাড়ী # ৯৫, রোড # ০৩, ব্লক # বি, চান্দগাঁও আ /এ, চট্টগ্রাম -৪২১২।
                                      ফোনঃ০৩১-৬৭১৩৬০ মোবাইল- ০১৭১৩-১৯৪৩৫০, ০১৭১৩-১৯৪৩৫২

কোর প্রোগ্রাম অফিস (পটিয়া)
মমতা আ/এ, মুন্সেফ বাজার, পটিয়া-৪৩৭০, চট্টগ্রাম।
মোবাইল- ০১৭১৩-১৯৪৩৬৩, ০১৭১৩-১৯৪৩৫৬
ডিআরসি অফিস (পটিয়া)-
খানমোহনা (গেইটঘর), পটিয়া বোয়ালখালী রোড, পটিয়া, চট্টগ্রাম।
মোবাইল- ০১৮১৭-৭০৬১৪৭, ০১৭১৩-১৯৪৩৫৬
শাখা অফিস (কর্ণফুলী)
কলেজ বাজার, কর্ণফুলী থানা, পটিয়া, চট্টগ্রাম।
মোবাইল- ০১৭১৩-১৯৪৩৬৭
শাখা অফিস (চান্দগাঁও)   
বাড়ী # ৬২, রোড # ০৩, ব্লক # বি, চান্দগাঁও আ /এ, চট্টগ্রাম -৪২১২।
মোবাইল- ০১৭১৩-১৯৪৩৬১
শাখা অফিস (হাটহাজারী)  
মেডিক্যাল গেইট, হাটহাজারী চট্টগ্রাম।
মোবাইল- ০১৭১৩-১৯৪৩৬০
শাখা অফিস (সাতকানিয়া) 
ফায়াস সার্ভিস, কেরানীহাট রাস্তার মাথা, টেমশা, চট্টগ্রাম।
মোবাইল- ০১৭১৩-১৯৪৩৭৩
শাখা অফিস (নাজিরহাট)  
জোনাকি সিনেমা হলের পাশে, নাজিরহাট, ফটিকছড়ি, চট্টগ্রাম।
মোবাইল- ০১৭১৩-১৯৪৩৬২

প্রকল্প অফিস (রাঙ্গামাটি)  
মিনতি ম্যানশন, দক্ষিণ কালিন্দিপুর রোড, রাঙ্গামাটি পাবর্ত্য জেলা, চট্টগ্রাম।
মোবাইল-০১৭১৩-১৯৪৩৬৬
Contact Us

We're not around right now. But you can send us an email and we'll get back to you, asap.

Not readable? Change text.